রবিবার, নভেম্বর ১৭, ২০১৯

শ্রাবণী সিংহের তিনটি কবিতা

স্বগতোক্তি কিছু

কল্পনার সূত্রে বহুদূর থেকে জেগে ওঠে কংসাবতী নদী এক;
মাতম নেমে আসে তারার রাজ্যে,
ভাঙ্গা দীপাবলী
রাতকে সূচিত করেছি নেভানো বাতিতে,
দীর্ঘতম পিপাসার মত দূরত্বের রেলপথ, প্রেম ছটফটায়।


চাইনিজ ইঙ্কের নকশা থেকে হাত সরে যায় কবিতার দিকে,
মুদ্রাদোষে
শব্দ সাজাই
কাঁটাছেঁড়া কথা সব লেখা যায়

বৃষ্টি এক শিরোনাম


বৃষ্টি এক ময়নাতদন্তের নাম!


জলের তোড়ে ভেসে আসা চটিটাতোমার ভেবে
বারবার মুখে করে নিয়ে আসছেবেয়াড়া কুকুরটা ...

তুমিও কি ফেরত আসতে চাইছ
অন্যস্রোতে?



জলেডোবা পায়ের পাতার একাংশে
তোমারই অর্বাচীন ছোঁয়া...
স্মৃতিরা কিছু বলছে, খুব নিচু স্বরে
জলের ভেতর দুটো পেখমী মাছেরগল্প হয় যেভাবে ।
বৃষ্টির পর মরচেরঙ সাঁকোটি এখনও
আমার পাশে
তোমাকেই বসাতে চাইছে।

না ঈশ্বর,না শয়তান
বৃষ্টি এক বহুল প্রচারিত শিরোনাম!

এই দহনকাল

গলার কাছটায় কেউ ধরে রেখেছে চক্‌চকে ধারালো ছুরি,
পায়ের নীচে বারুদের স্তূপটাকে দেখে নিই
একটা দেশলাইয়ের কাঠি ছারখার করে দিতে পারে
নগর, সংসার
এই প্রখর সময়ের অসহিষ্ণুতা

বারুদের চেয়ে কম কি?