বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৪, ২০১৯

রাজ্য সভাতেও পাস হল তিন তালাক বিল

ঐতিহাসিক দিন’, তিন তালাক বিল পাস করিয়ে বললেন মোদী ।

তালাক তালাক তিন তালাক বলে ভারতে মুসলিম নারীকে আর বেঘর করা যাবে না ।

লোকসভা পাস হওয়ার পর মঙ্গলবার রাজ্যসভাতেও পাশ হয়ে গেল তিন তালাক বিল । কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ দুপুর বারোটায় বিল হাউজের উপস্থাপন করএছিলেন । বিলকে সদনে উপস্থাপন করার পর রবিশঙ্কর প্রসাদ বলেছিলেন, এটি লিঙ্গ ন্যায়বিচার, মর্যাদা এবং সাম্যের বিষয়। ভারত একটি ধর্মনিরপেক্ষ দেশ। ২০১৩ সালের ট্রিপল তালাকের দরুন বিবাহ বিচ্ছেদের পর সুপ্রিম কোর্টে গিয়েছিল কিছু শোষিত মহিলা। এই ক্ষেত্রে, সুপ্রিম কোর্টের দুজন বিচারক রায় দিয়েছিলেন।এক্ষেতে এক বিচারক বলেছিলেন, স্বেচ্ছাচারিতা এবং অসাংবিধানিক। অন্যদিকে আরো একজন বিচারক বলছিলেন, কুরআনে যা লেখা আছে তা সাংবিধানিক দৃষ্টি দিয়েও সঠিক হবে তা প্রয়োজনীয় নয়। এই ইস্যুতে সদনের হস্তক্ষেপেও দাবি করা হয়েছিল। আর সরকারের দীর্ঘ প্রচেষ্টার পর আজ রাজ্য সভায় ত্রিপিল তালাক বিল পাস হয়েছে। তিন তালাক দিলে স্বামীকে ৩ বছরের সাজা দেওয়া হবে। এবার থেকে ভারতে তিন তালাক আইনি অপরাধের শ্রেণীতে পড়বে ।

রাজ্যসভায় তিন তালাক বিল পাসের পর বললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বলেন, আজ ‘’ঐতিহাসিক দিন। গোটা দেশের মা-বোনেরা আজ জিতে গিয়েছেন। অবশেষে সেকেলে ও মধ্যযুগীয় এর প্রথাকে ডাস্টবিনে ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া গিয়েছে’’ ।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এদিন টুইট করেন, তিন তালাক বিল পাস হওয়ায় এই মধ্যযুগীয় প্রথার অবসান ঘটতে চলেছে। এই প্রথাকে ডাস্টিবিনে নিক্ষেরপ করা গিয়েছে। মুসলিম মহিলাদের সঙ্গে দিনের পর দিন যে ঐতিহাসিক ভুল হয়েছে, তা শোধরানো সম্ভব হল এতদিনে। এটা লিঙ্গবৈষম্য দূরীকরণ ও সাম্যের পক্ষে বিরাট জয়।

মোদীর কথায়, এই বিল মহিলাদের ক্ষমতায়নে এক দিশা দেখাবে। এতদিন কোটি কোটি মা-বোনের সঙ্গে অন্যায় করা হচ্ছিল। এই পাপের প্রায়শ্চিত্য করা হল এতদিনে। এই বিল পাশ করতে পারায় আমি গর্বিত, আমার সরকার গর্বিত হল। যাঁরা এই বিলের স্বপক্ষে যুক্তি দিয়েছেন, এই বিল পাস করতে সাহায্য করেছেন, তাঁদের ধন্যবাদ দেন প্রধানমন্ত্রী।

এদিন তিন তালাক বিলের বিরোধিতা করলেও, জেডিইউ, টিআরএস ও এআইএডিএমকে অধিবেশনকক্ষ থেকে ওয়াকআউট করে। এরপএরপর ভোটাভুটি হয়। বিলের পক্ষে ভোট পড়ে ৯৯টি। বিপক্ষে ভোট পড়ে ৮৪টি।

  • ছবি -- ইন্টারনেট