সোমবার, আগস্ট ১০, ২০২০

চলে গেলেন ভারতীয় সিনেমার উজ্জ্বল নক্ষত্র ইরফান খান

  • অন্যদেশ ডেস্ক , ২৯.০৪.২০২০

মাত্র চারদিন আগে মা বেগম তন্ক প্রয়াত হয়েছিলেন । ইরফান মুম্ব-ই থেকে ভিডিও কনফারেন্সে মায়ের শেষকৃত্য দেখেন । এর দুইদিন পরে তিনি কোলেন ইনফেকশন নিয়েমুম্বইয়ের কোকিলাবেন হাসপাতালে ভর্তি হন ।

বুধবার মুম্বইয়ের কোকিলাবেন হাসপাতালেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে বয়স হয়েছিল ৫৪।

শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যার কারণে তাঁকে মঙ্গলবার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।কোলোনে সংক্রমণের কারণে তাঁকে আইসিইউ-তে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছিল। এর আগে ২০১৯-এ ইরফান জানিয়েছিলেন যে, তিনি নিউরোএনডোকট্রিন টিউমারের সমস্যায় ভুগছেন।

বুধবার সকালে ট্যুইটে পরিচালক সুজিত সরকার ইরফানের মৃত্যুর খবর জানান। ট্যুইটারে তিনি লেখেন, ‘প্রিয় বন্ধু ইরফান। তুমি লড়েছো, লড়ে গিয়েছ। আমি তোমাকে নিয়ে সবসময় গর্বিত। আবার আমাদের দেখা হবে। সুতপা ও বাবিলের জন্য সমবেদনা রইল। তোমরাও লড়াই করেছ। সুতপা তুমি সর্বস্ব দিয়ে লড়েছ। ওম শান্তি। ইরফান খান তোমাকে স্যালুট’।

বলিউডের বহু কম অভিনেতাই, তাঁর প্রতিভা দিয়ে আন্তর্জাতিক বাধা পেরতে সক্ষম হয়েছেন। সেই নামের তালিকায়, ইরফান খান নিঃসন্দেহে প্রথম সারিতে রয়েছেন। তাঁর সর্বশেষ ছবি 'আংরেজি মিডিয়াম', অত্যন্ত হৃদয়গ্রাহী এক ছবি। যে ছবিতে গাঁথা রয়েছে, স্বাধীনতা এবং পিতৃত্বের পরম গল্প। যদিও দারুণ সাবলীল-স্বতঃস্ফূর্ত অভিনেতা, এই মুহূর্তে তাঁর শারীরিক অসুস্থতার কাজ করতে পারছেন না। কিন্তু তার আগেই, দর্শকদের কথা মাথায় রেখে ইতিমধ্যে রিলিজ করে দেওয়া হয়েছে তাঁর এই ছবির ট্রেলার। শুধু দর্শকদের কারণেই নয়, সত্যি বলতে ইরফানকে নিয়ে ছবি ঘিরে যে চমৎকার বার্তা, তা মেলে ধরতেও তাঁরা দেরি করেননি।

একাধিক সফল ছবি তিনি উপহার দিয়েছেন । তিনি অনুরাগী মহলে চিরকাল বেঁচে থাকবেন ।


ইরফান খান


সাহাবজাদা ইরফান আলী খান (জন্ম: ৭ই জানুয়ারি, ১৯৬৭ ইরফান নামে পরিচিত । ভারতীয় সিনেমার একজন সফল অভিনেতা। সাধারণত তিনি বলিউডে অভিনয়ের মাধ্যমে বেশি পরিচিত। তিনি ব্রিটিশ ভারতীয় হলিউড , এবং তেলেগু ছবিতে কাজের জন্যও পরিচিত।[ তিনি ২০১২ সালের মার্কিন চলচ্চিত্র অ্যামেজিংস্পাইডারম্যান অভিনয় করে প্রশংসা অর্জন করেন। এছাড়া তিনি হলিউডের সিনেমা জুরাসিক ওয়ার্ডে এ দারুণ অভিনয় করেন।ইরফান ১৯৬৭ সালের ৭ই জানুয়ারি ভারতের জয়পুরে একটি মুসলিম সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। ইরফানের মা, বেগম তন্ক হাকিম পরিবার থেকে এসেছিলেন এবং এবং তার মরহুম পিতা জাগিরদার তন্ম জেলার বাসিন্দা ছিলেন সেখানে পাগড়ির ব্যবসা করতেন। তিনি ১৯৮৪ সালে নয়া দিল্লির ন্যাশনালস্কুলঅবড্রামা (এনএসডি) থেকে স্কলারশিপের অর্জন করেন, যদিও তিনি তখন তার এমএ ডিগ্রীর জন্য অধ্যয়নরত ছিলেন।